রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের আগেই ৩ হাজার পুলিশ কর্মী ও ১৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

প্রতিফলক ডেস্কঃ সামনেই বিধানসভা নির্বাচন, এরই মধ্যে রাজ্যে কর্মসংস্থানের পথ আরও প্রশস্ত হলো। নবান্নে মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর বুধবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিকদের, এই দুটি নিয়োগের খবর জানালেন। নিরাপত্তার ক্ষেত্রে জোর দিয়ে জানালেন রাজ্য পুলিশের আরো তিনটি ব্যাটেলিয়ান তৈরি হচ্ছে। এবং মহামারী পরবর্তী পরিস্থিতিতে পুলিশ ও শিক্ষা ক্ষেত্রে শূন্য পদে নিয়োগ করা হবে। একুশের বিধানসভা কে সামনে রেখে এই ঘোষণা বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। তবে চাকুরী ক্ষেত্রে এই নিয়োগের খবরে সন্তুষ্ট রাজ্যবাসী।

উল্লেখ্য, এই মুহূর্তে উত্তীর্ণ টেট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা রাজ্যে ২০ হাজার। তাঁরাই শিক্ষাক্ষেত্রে নিয়োগে অগ্রাধিকার পাবেন। আগামী বছর টেট হবে অফলাইনে। বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে নানা টানাপোড়েনের জেরে শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছিল না।
তারই জেরে অসন্তুষ্ট ছিল রাজ্যের লক্ষ লক্ষ শিক্ষিত যুবক যুবতী। অবশেষে এদিন মুখ্যমন্ত্রী নবান্নে মন্ত্রিসভার বৈঠক ডেকেছিলেন। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি জানান, ”কোভিড পরিস্থিতির উন্নতি হলে শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগ শুরু হবে। ডিসেম্বর থেকেই ১৬ হাজার পদে নিয়োগ করা হবে টেট উত্তীর্ণদের। যাবতীয় নিয়মকানুন স্থির করে পরে জানাবে শিক্ষাদপ্তর।”

মুখ্যমন্ত্রী আরো ঘোষণা করেন, রাজ্য পুলিশে নতুন করে আরও তিনটি ব্যাটেলিয়ন তৈরি হচ্ছে। পাহাড়ের নিরাপত্তায় গোর্খা ব্যাটেলিয়ন, জঙ্গলমহলের জন্য একটি ব্যাটেলিয়ন এবং কোচবিহারের নারায়ণী ব্যাটেলিয়ন তৈরি করা হবে। মোট ৩০০০ নিয়োগ করা হবে এই তিন ব্যাটেলিয়ানে। তবে একইভাবে এবং কবে থেকে নিয়োগ প্রক্রিয়া চালু হবে তা এখনও স্পষ্ট জানানো হয়নি। প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে নিয়োগের ভার রাজ্য পুলিশের শীর্ষ কর্তাদের হাতে ছেড়ে দিয়েছেন। এই নিয়োগে খবরে রাজ্যের শিক্ষিত বেকাররা আশার আলো দেখলেও অনেকে একে রাজনৈতিক ও ভোটব্যাঙ্ক বাড়ানোর চক্রান্ত বলে মনে করছেন।

WhatsApp chat
error: