আম্পান ঘূর্ণিঝড়ে লন্ড-ভন্ড বাংলা, দুর্গতদের জন্য লঙ্গরখানা স্থাপন, আব্দুল মাতিন সাহেবের

এমরুক মোল্লা, প্রতিফলক ডেস্কঃ একদিকে করোনা অন‍্যদিকে আমফান, জোড়া ফলায় রক্তাক্ত বাংলা। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে দুর্গতদের জন্য ত্রান সামাগ্রী বিতারন করার সিদ্ধান্ত ঘোষনা করেন অল ইন্ডিয়া সুন্নাত অল জামায়েত সাধারণ সম্পাদক মুফতী আব্দুল মাতিন সাহেব।

গত বুধবার অর্থাৎ ২০ শে মে বাংলার উপর দিয়ে বয়ে গেছে এক্সট্রিমলি সেভিয়ার সাইক্লোন আমফান। লন্ডভন্ড করে গেছে কলকাতা, উত্তর ও দক্ষিন ২৪ পরগনা সহ রাজ্যের একাধিক জেলাকে। হাজার হাজার মানুষ হারিয়েছে বাসস্থান। নেই জল, নেই খাবার। এই ঝড়ের তান্ডবে আজ যাঁরা সর্বস্বান্ত তাঁদের ২ বেলা খাওয়ার জন্য “ক্ষুধা প্রকল্পের” মাধ্যমে লঙ্গরখানা খুলে খাওয়ার ব্যবস্থা ঘোষনা করে অল ইন্ডিয়া সুন্নাত অল জামায়াত।

গত ২৯ শে মে সংগঠনের পক্ষথেকে বসিরহাট ২ নং ব্লকের ইটিন্ডা পানিতর, হাসনাবাদ ব্লকের জয়গ্রাম ও দক্ষিন ২৪ পরগনা জেলার ক্যানিং এর ৭ মুখি আবু জাফরিয়া সিদ্দিকীয়া মাদ্রাসায় চাল, ডাল, আলু, সোয়াবিন, সহ বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী পৌছে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংগঠনের অফিস সম্পাদক তরিকুল ইসলাম।

এদিনের খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিতে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের অফিস সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, মাগরীবি বাঙ্গাল আঞ্জুমানে অয়েজিনের সদস্য মাওলানা দ্বিন মুহাম্মাদ সাহেব, হাফেজ মোক্তাদির হোসেন, জাকির হোসেন প্রমুখ।

সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মুফতী আব্দুল মাতিন সাহেব বলেন, আমরা লক ডাউন পরিস্থিতিতে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বিভিন্ন এলাকাতে ৩০ টি এর অধিক এলাকায় লঙ্গর খানার মাধ্যমে অসহয়, দিনমজুর ও শ্রমিকদের খাওয়াব ব্যবস্থা করেছিলাম। এখনও বিভিন্ন এলাকাতে লঙ্গরখানা চালু আছে। আম্ফান বিদ্ধস্ত এলাকাতে আমরা রান্না করে খাওয়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এতিমধ্যে ৩৮ টি লঙ্গরখানা চালু করা হয়েছে। লকডাউন এর কারনে দুঃস্থ পরিবারের জন্য ২২ টি এবং সুপার সাইক্লোন আম্ফানে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষদের খাওয়ানোর জন্য ১৬ টি লঙ্গরখানা স্থাপন করা হয়েছে। এবং প্রয়োজনমতো এর সংখ্যা আরো বাড়ানো হতে পারে বলে জানিয়েছেন অল ইন্ডিয়া সুন্নাত আল জামাতের সাধারণ সম্পাদক মুফতি আব্দুল মাতিন সাহেব।

WhatsApp chat
error: