‘নাগারনো কারাবাখ’ ছেড়ে পালাচ্ছে আর্মেনীয় জনগণ, ৩০ টি এলাকা পুনরুদ্ধার আজারবাইজানের

প্রতিফলক নিউজ ডেস্ক:সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে গড়ে ওঠা ককেশাস অঞ্চলের দুটি দেশ আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজান। ‘নাগারনো কারাবাখ’ নামে একটি এলাকা নিয়ে দুটি দেশের মধ্যে বিতর্ক বহুদিনের। গত ২৭ শে সেপ্টেম্বর আজারবাইজানের সেনা চৌকি লক্ষ্য করে আর্মেনিয়া সামরিক হামলা করলে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে, যা পরবর্তীতে যুদ্ধের রূপ নেয়।

১৪ দিন ধরে চলে আসা সংঘর্ষে এখনো পর্যন্ত সুবিধাজনক স্থানে আজারবাইজান। নাগারনো কারাবাখ এর একটি বড় পাহাড় সহ প্রায় ৩০ টি এলাকা দখল মুক্ত করেছে আজারবাইজান। সামরিক-বেসামরিক মিলিয়ে দুই পক্ষের নিহতের সংখ্যা প্রায় দুই শতাধিক। আজারবাইজানের ক্রমাগত হামলায় পিছু হটতে বাধ্য হচ্ছে আর্মেনীয় বাহিনী। যদিও আমেরিকা ফ্রান্স এবং রাশিয়ার উদ্যোগে শান্তি আলোচনা শুরু হয়েছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ‘নাগারনো কারাবাখ’ আজারবাইজানের ভূখন্ড বলেই আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত। যদিও সেখানে আর্মেনীয় বংশোদ্ভূত এর সংখ্যা বেশি। পরবর্তীতে আর্মেনীয় মদদপুষ্ট মিলিশিয়ারা এই এলাকার নিয়ন্ত্রণ নেয়। গত দু’সপ্তাহ ধরে চলে আসা যুদ্ধে আর্মেনীয় বংশোদ্ভূতরা নগারনো কারবাখ এলাকা ছাড়ছে বিপুল হারে। এ কথা স্বীকার করে নিয়েছেন নগারনো কারবাখের প্রশাসনিক প্রধান আরতাক ব্লেগেরিয়ান। নাগার্নো কারাবাখের প্রধান শহর’ স্টিপান কিয়াট’ কার্যত জনমানব শূন্য হয়ে পড়েছে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম।

WhatsApp chat
error: